Tripura News Live

[t4b-ticker]

রাশিয়া- ইউক্রেনের বিধ্বংসী ৮দিনের যুদ্ধে বিশ্ব আসর চিন্তিত,কি হবে পরিনাম?

এ যেন মহাভারতের ন‍্যায় সন্মান রক্ষার যুদ্ধ। একটানা ৮দিন ধরে অনবরত ক্ষমতার লড়াইয়ে যুদ্ধে ত্রাহি ত্রাহি করছেন গোটা বিশ্ব আসরে বসে থাকা দেশগুলি। একের পর এক ধংসের স্তুপের উপ‍র দিয়ে এগিয়ে চলছে ইউক্রেন দখলের উদ্দেশ্যে রাশিয়া। কোনো দেশের চোখ রাঙানি তোয়াক্কা না করে দিনের পর দিন আরও বেশি ধ্বংসাত্মক মূলক আক্রমণের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে রুশ বাহিনী। হাহাকার করছেন ভূখণ্ডের এই ছোট্ট দেশ ইউক্রেনের বাসিন্দারা। রাজনৈতিক চাপানতরে সর্বত্র সর্বদা বলির পাঁঠা হন সাধারণ মানুষ। সমগ্র বিশ্বজুড়েই উত্তেজনাকর পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে প্রায় এক সপ্তাহ ধরে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ চলছে। ইউক্রেনে বিভিন্ন জায়গায় চলছে রাশিয়ার বিধ্বংসী মূলক আক্রমণ। ইতিমধ্যেই হতাহতের সংখ্যা কয়েকশো। এরইমধ্যে রাশিয়া ও ইউক্রেন আরও একবার আলোচনার টেবিলে মুখোমুখি বসতে চলেছে। দুই দেশের মধ্যে এই বৈঠকে কয়েকটি বিষয়ে ফের আলোচনার ব্যাপারে সহমতি হয়েছিল। এদিনের বৈঠক হবে বেলারুশে।
রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের এক শীর্ষ সহযোগী জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবারের এই বৈঠকের জন্য রুশ প্রতিনিধি দল বেলারুশ পৌঁছবে। এই প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে রয়েছেন ভ্লাদিমির মেন্ডেস্কি। বুধবার সন্ধেয় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, তথ্য অনুসারে, ইউক্রেনের প্রতিনিধি দল কিভ থেকে রওনা দিয়েছে।
ইতিমধ্যেই রাষ্ট্রপুঞ্জের সাধারণ সভায় রাশিয়ার ইউক্রেন আক্রমণের নিন্দা করা হয়েছে। সেই সঙ্গে রাশিয়াকে ইউক্রেন থেকে সেনা প্রত্যাহার করতে বলা হয়েছে। এরইমধ্যে যুদ্ধ শুরুর পর দুই দেশের মধ্যে দ্বিতীয় দফার আলোচনা হতে চলেছে। ইউক্রেনে চলছে তুমুল লড়াই। শোনা যাচ্ছে বড় বিস্ফোরণের শব্দ। এখনও পর্যন্ত যুদ্ধে ৮ হাজার ৩৯৫ জন প্রাণ হারিয়েছেন বলে দাবি ইউক্রেনের। রুশ হামলা ঠেকাতে গিয়ে ইউক্রেন হারিয়েছে ১৯০টি ট্যাঙ্ক, ৬০টি ফাইটার জেট। পাল্টা রুশ সেনার ৩টি জেট ও ২টি হেলিকপ্টারকে গুলি করে নামিয়েছে বলে দাবি ইউক্রেনের। যুদ্ধ পরিস্থিতির মাঝেই বৈঠকে বসছেন কোয়াড সদস্যদেশগুলি(QUAD Countries)। আজ, বৃহস্পতিবারই মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন (Joe Biden), অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন(Scott Morrison), জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা(Fumio Kishida)-র সঙ্গে বৈঠকে যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi)।কেন্দ্রীয় সূত্রে খবর, আজ কোয়াডের সদস্য দেশগুলি নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ ও সম্পর্ককে মজবুত করা এবং ইন্দো-প্রশান্তমহাসাগরীয় অঞ্চলের সার্বিক উন্নতি নিয়ে ভার্চুয়াল বৈঠক করা হবে। এর আগে ২০২১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে কোয়াডের সদস্য দেশগুলির প্রধানরা ওয়াশিংটনে একজোট হয়েছিলেন। বিদেশমন্ত্রকের তরফে বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, এই ভার্চুয়াল সামিটে কোয়াডের সদস্য দেশগুলির মধ্যে ইন্দো-প্রশান্তমহাসাগরীয় অঞ্চলের উন্নতি নিয়ে নিজেদের মধ্যে আলোচনা ও মতামত আদানপ্রদান করতে পারবেন।
উল্লেখ্য, বিগত কয়েক বছর ধরেই ইন্দো-প্রশান্তমহাসাগরীয় অঞ্চলে যে চিনা আগ্রাসন বেড়েছে, তার প্রেক্ষিতে কোয়াডের বৈঠক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এরইমধ্যে আবার রাশিয়া-ইউক্রেনের মধ্যেও যুদ্ধ বেধেছে। এই যুদ্ধে চিন রাশিয়াকে সমর্থন করছে, তবে কোয়াডের সদস্য আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া বা জাপান ইউক্রেনকেই সমর্থন করছে।
বিদেশমন্ত্রকের তরফে বৈঠক নিয়ে বিস্তারিত তথ্য জানানো না হলেও, বলা হয়েছে, “মূলত ইন্দো-প্রশান্তমহাসাগরীয় অঞ্চলের সার্বিক উন্নয়ন নিয়ে আলোচনা করা হবে। পাশাপাশি কোয়াড নেতারা পূর্ববর্তী বৈঠকগুলিতে যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল, তা কতটা কার্যকর ও ফলপ্রসূ হয়েছে, তাও খতিয়ে দেখা হবে। তবে এদিনের বৈঠকে ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধ পরিস্থিতি বা রাশিয়ার আগ্রাসন নিয়ে কোনও আলোচনা হবে কিনা, সে বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি। কিন্তু গত সপ্তাহে ইউক্রেনের উপর রাশিয়া হামলা চালানোর পরই আমেরিকা, জাপান ও অস্ট্রেলিয়া রাশিয়ার আর্থিক অনুদানে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। ভারতের কোনও অনুদান বন্ধের নীতি নেই। রাষ্ট্রসঙ্ঘের বৈঠকেও ভারত রাশিয়ার আগ্রাসন নিয়ে কোনও সমালোচনা করেনি। কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে, আপাতত ইউক্রেনে আটকে থাকা ভারতীয়দের উদ্ধার করে আনাই প্রধান লক্ষ্য।

ADVERTISEMENT